কান্নায় আছে অনন্ত সুখ আর প্রশান্তি | When Queen Talks | Best Life stories ever
You cannot copy any content of this page! For Permission: Ferdous Ara. Thank You!

কান্নায় আছে অনন্ত সুখ আর প্রশান্তি

আপনি যদি আপনাকে চিরসবুজ, চিরসুন্দর ও সতেজ রাখতে চান তবে অঝর ধারায় কাঁদবার ক্ষমতা অর্জন করুন। অঝোর ধারায় কাঁদতে পারার ভেতরেই রয়েছে মনের প্রশান্তির মূল চাবিকাঠি। যার হৃদয় যত বেশি প্রশান্ত তার চেহারাও ততবেশি সৌম্যদীপ্ত। যার হৃদয় যত বেশি কাঁদতে পারে তাঁর হৃদয় তত বেশি উর্বরতা লাভ করে থাকে। কান্না এক স্রোতস্বিনী নদীর মতো যা আপনার হৃদয়ের ভিতর থেকে সমস্ত আবর্জনাকে ভাসিয়ে নিয়ে গিয়ে মহা সমুদ্রে নিক্ষেপ করে। আর মহাসমুদ্র তা চিরকালের জন্য অতল গহ্বরে বিলীন করে দেয়।

জীবন কোনো ফুলশয্যা নয়

মানব জীবন ফুলসজ্জায় সজ্জিত কোনো শয্যা নয় যে এই পৃথিবীতে নিশ্চিন্তে জীবনটা কাটিয়ে দেওয়া যাবে। দুঃখ, কষ্ট, যন্ত্রণা এ ধরনের নানা রকম অভিজ্ঞতা গুলোর মধ্যে দিয়ে আমাদের জীবন চক্রাকারে ঘুরতে থাকে। তাই ফুলের মতো জীবন কাটিয়ে দেওয়ার মতো কোনো সুব্যবস্থা এই পৃথিবীতে নেই। প্রতিনিয়ত মানুষকে হতে হয় নানা রকম ঘাত-প্রতিঘাতের সম্মুখীন। এই ঘাত-প্রতিঘাত গুলো থেকে উদ্বুদ্ধ নানারকম তিক্ত অভিজ্ঞতা মানুষ সঞ্চয় করে থাকে। আর সেগুলো থেকে যে সমস্ত রাগ-অভিমান সৃষ্টি হয় তা’ মানুষকে ভেতর থেকে ক্ষত-বিক্ষত করে তোলে।

এর ফলাফল কি হতে পারে

সেইসব ঘাত-প্রতিঘাতের মাধ্যমে মানুষের মনে রাগ, অভিমান, ক্রোধ সৃষ্টি হয়ে
হৃদয় থেকে রক্তক্ষরণ হতে থাকে। অনেক সময় জীবন থেকে পাওয়া আঘাত গুলোর কারণে ব্যক্তি এতটাই নিঃশক্তি হয়ে যায় যে সে তখন আর নিজের জীবনকেও বহন করার শক্তিটুকু হারিয়ে ফেলে।

নিয়তির এ রকম কঠিন অবস্থায় যখন কোনো ব্যক্তি পৌঁছে যায় তখন ওই ব্যক্তি জীবনের প্রতি হয়ত বা চরমভাবে বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়তে পারে আর না হলে জীবনের প্রতি তার তীব্র অভিমান সৃষ্টি হয়ে থাকে। অত্যন্ত ভয়ানক সত্য হলো এই যে, এ সকল অভিমানের মধ্যে এমন কিছু বিধ্বংসী অভিমান মানুষের মনে তৈরি হয় যা তার জীবনে চরম বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে।

কখনো যদি কোনো ব্যক্তির মনে এই ধরনের অভিমান তীব্র আকার ধারণ করে আর সেই অভিমান দূর করার ব্যক্তিটি যদি তার অন্তর থেকে অভিমান দূর করে না থাকে তাহলে সেই অভিমানী ব্যক্তিটি ভয়ানক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে থাকে। তীব্র অভিমান কিন্তু মানুষকে কখনো কখনো এতটাই অন্ধকারে নিমজ্জিত করে ফেলে যে, মানুষ তা’ আগে থেকে চিন্তাই করতে পারে না।

অনেকেই আত্মহননের পথ বেছে নেয়

এমনকি এই ধরনের অভিমানগুলো শেষ পর্যন্ত মানুষকে আত্মহননের মাধ্যমে কবর পর্যন্ত নিয়ে যায়। একজন মানুষ কখন তার জীবনকে শেষ করে দিতে চায় ?
যখন তার মনে হয় যে, বেঁচে থাকার মতো এক বিন্দুও আর আশা বাকি নেই। এটি হতে পারে তার চরম অভিমানের কারণে আবার হতে পারে প্রচন্ড রাগের কারনেও।

সবচেয়ে নির্মম সত্য হলো আপন মানুষগুলোই তার আপনজনকে আত্মহননের পথ বেছে নিতে বাধ্য করে।

এতক্ষণ এতগুলো কথা এই জন্যই বললাম যে, এগুলোই জীবনের নির্মম সত্য।

এবার বলি, এই সত্যগুলো যতই নির্মম হোক না কেন জীবনের চেয়ে বড় সত্য আর কিছু নেই। আমাদের জীবনে দুঃখ কষ্ট যন্ত্রণা এগুলো যতই আসুক না কেন, এগুলোকে কখনোই চিরস্থায়ী ভাবার কোনো যুক্তি নেই। হ্যাঁ, প্রতিটি মানুষের জীবনেই খারাপ সময় এসে থাকে। তাই বলে সে খারাপ সময় গুলো থেকে বের হতে পারবো না, এরকম হতাশায় ভুগতে থাকা ঠিক নয়।

হতাশা সব সময় ইবলীস শয়তান থেকে এসে থাকে। তাই আমাদের সব সময় মনে রাখতে হবে যে, খারাপ সময় বেশি দিন থাকে না। ঘন অন্ধকার কালো নিকষ অমাবস্যার রাতটির পরেও কিন্তু একটি উজ্জ্বল সোনালী সূর্য উদিত হয়। তাই কখনো হতাশ হয়ে নিজেকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য ভাবা কিংবা জীবনকে শেষ করে দেওয়ার কথা চিন্তা করা উচিৎ নয়।

একজন মানুষ আল্লাহর একটি সুন্দর এবং সেরা সৃষ্টি। সেই জীবনটাকে পৃথিবীর নানা রকম সঙ্কাটাবস্থার মধ্য দিয়ে পার করতে হবে এটাই স্বাভাবিক। জীবনের সকল বাঁধা-বিপত্তি পার হয়েই যে মানুষ আল্লাহর কাছে পৌঁছাতে পারে সেই তো শ্রেষ্ঠ মানুষ। পৃথিবীর সামান্যতম দুঃখ কষ্টের মুখোমুখি হলেই কি জীবনকে শেষ করে দিতে হবে ? না, এর কোন যুক্তিযুক্ত কারণ নেই। কারণ জীবনকে শেষ করে দেওয়ার মধ্যে যদি কোনো শ্রেষ্ঠত্ব থাকতো তবে সব মানুষই তাদের দুঃখ কষ্ট সহ্য করতে না পেরে জীবনকে শেষ করেই দিত।

এবার আসি কান্নার কথায়

কান্না হলো একটি অপার শক্তির নাম। যে ব্যক্তি তাঁর ঈমানী শক্তিতে যত বেশি শক্তিশালী সে ব্যক্তি তত বেশি আল্লাহর দরবারে কাঁদতে পারে। আল্লাহ মানুষের চোখের জল খুব পছন্দ করেন। কোনো কঠিন হৃদয়ের মানুষ কখনো কাঁদতে পারেনা। তাই এই ধরনের মানুষগুলো নিজেদের জীবনকে কখনো শেষ করে দেবার কথা চিন্তাও করে না। কঠিন হৃদয়ের মানুষ গুলোই অন্য মানুষের জীবন ধ্বংস করে নিজের জীবন সাজাবার কথা চিন্তা করে।

আল্লাহর পক্ষ থেকে সান্তনা বাণী

আপনি কষ্ট পেয়েছেন কারণ আপনাকে কেউ কষ্ট দিয়েছে। আপনি এখন এই কষ্ট সহ্য করতে না পেরে যদি মহান আল্লাহর দরবারে অঝোর ধারায় কাঁদতে থাকেন তবে আপনি এর বিনিময়ে যা পাবেন তা’ পৃথিবীর কোনো মানুষই আপনাকে দিতে পারবে না। আপনার বুকের ভেতরে জমানো সমস্ত কষ্ট গুলো ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাবে। আল্লাহর তরফ থেকে আপনাকে দেওয়া হবে সান্ত্বনা বাণী। এর অর্থ হলো সেই কষ্টের বিনিময়ে আপনার জন্য পুরস্কার নির্ধারণ করা হয়ে গেছে।

কান্নার মাধ্যমে হৃদয়ের উর্বরতা বৃদ্ধি পায়

নিশ্চয়ই খেয়াল করেছেন, যে সকল মাঠে বৃষ্টির পানি পতিত হয়, সে সকল মাঠে সবুজ ঘাস জমে ওঠে। বৃষ্টি ধোয়া পানিতে মাঠ প্রান্তরের গাছপালাগুলো এক অনিন্দ্যসুন্দর সবুজ রূপ ধারণ করে। ঠিক তেমনি যে সকল হৃদয় থেকে অঝোর ধারায় অশ্রু ঝরে সেই হৃদয় গুলো নিষ্পাপ এক সৌন্দর্য্য লাভ করে থাকে।

যে হৃদয় যত বেশি কাঁদতে পারে সে হৃদয় তত বেশি সবুজ আর সতেজ থাকে। হৃদয়ের এই সবুজ ও সতেজতার কারণেই ক্রন্দসী ব্যক্তির আভ্যন্তরীণ নিষ্পাপ সৌন্দর্য্য টি তাঁর চেহারায় ফুটে উঠে। কারণ অঝর ধারায় কাঁদবার ফলে তার ভেতর থেকে সমস্ত রাগ, ক্রোধ, হিংসা, বিদ্বেষ, দুঃখ-কষ্ট সব ধুয়ে মুছে পরিষ্কার হয়ে গেছে। সেখানে অবস্থান করছে আল্লাহর দেওয়া এক অনাবিল স্বর্গীয় প্রশান্তি।

এই স্বর্গীয় প্রশান্তি যে ব্যক্তি লাভ করতে চায়, তাকে সৃষ্টিকর্তার দরবারে দুহাত তুলে কাঁদতে কাঁদতে চোখের জলে বুক ভাসিয়ে দিতে হবে। সিজদায় পতিত হয়ে বিধাতার কাছে কেঁদে কেঁদে নিজেকে আত্মসমর্পণ করতে হবে।

এই মুহূর্তে মনে পড়ছে না, কোনো এক বিখ্যাত মনিষী বলেছিলেন, “কান্নায় আছে অনন্ত সুখ, তাইতো আমি কাঁদতে ভালোবাসি”। সত্যি, একবার যদি কেউ কাঁদবার সুখ পেয়ে থাকে, সে আর কখনো সেই কান্না করার সুখ থেকে বের হয়ে আসতে চাইবে না।

সব হৃদয় যেন আল্লাহর কাছে অঝর ধারায় কেঁদে নিজেকে আত্মসমর্পণ করতে পারে সে প্রত্যাশায় এখানেই শেষ করছি।

ভালো লাগলে শেয়ার করবেন। যদি কোনো দুঃখ পাওয়া, কষ্ট পাওয়া মানুষ এই লেখনির মাধ্যমে একটু উপকৃত হয়ে থাকে।

1 thought on “কান্নায় আছে অনন্ত সুখ আর প্রশান্তি

  1. Hi! whenqueentalks.info

    We propose

    Sending your commercial proposal through the Contact us form which can be found on the sites in the contact section. Feedback forms are filled in by our application and the captcha is solved. The superiority of this method is that messages sent through feedback forms are whitelisted. This method improve the probability that your message will be open. Mailing is done in the same way as you received this message.
    Your commercial proposal will be open by millions of site administrators and those who have access to the sites!

    The cost of sending 1 million messages is $ 49 instead of $ 99. (you can select any country or country domain)
    All USA – (10 million messages sent) – $399 instead of $699
    All Europe (7 million messages sent)- $ 299 instead of $599
    All sites in the world (25 million messages sent) – $499 instead of $999

    Discounts are valid until May 10.
    Feedback and warranty!
    Delivery report!
    In the process of sending messages we don’t break the rules GDRP.

    This message is automatically generated to use our contacts for communication.

    Contact us.
    Telegram – @FeedbackFormEU
    Skype – FeedbackForm2019
    Email – FeedbackForm@make-success.com
    WhatsApp – +44 7598 509161
    http://bit.ly/2Wd7ilW

    Sorry to bother you.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *